Man in black and yellow jacket with face mask
Photo by Lucian Petronel Potlog on Pexels

আসছে করো’না সংক্রমণ রোধী ইলেকট্রনিক মাস্ক

বৈশ্বিক মহামারি করো'নাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মাস্কের চাহিদা। এমন পরিস্থিতিতে ইলেকট্রনিক মাস্ক তৈরি করেছেন সেন্ট্রাল তুরস্কের আকসারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন ডাক্তার।

বৈশ্বিক মহামারি করো’নাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মাস্কের চাহিদা। এমন পরিস্থিতিতে ইলেকট্রনিক মাস্ক তৈরি করেছেন সেন্ট্রাল তুরস্কের আকসারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন ডাক্তার।

জানা গেছে, এই মাস্ক রোগ-জীবাণুর পাশাপাশি করো’নাভাইরাসের জীবাণু ধ্বংস করতে পারবে। এ ছাড়াও এটি পরা থাকলে করো’না আক্রান্ত রোগীর শ্বাসযন্ত্র, হাঁচি-কাশির মাধ্যমে জীবাণু ছড়াতে পারবে না।

চলমান প্রজেক্টের অংশ হিসেবে এই মাস্ক তৈরি করেছেন ওই দুই ডাক্তার। এ বিষয়ে তাদের একজন ডাক্তার তারিক ইলমাজ বলেন, ‘প্রথমে আমরা বহনযোগ্য ও নিজে নিজেই জীবাণুমুক্ত হতে পারে এমন মাস্ক তৈরি করার চেষ্টা করেছি। এরপর আমরা জীবাণু ও ভাইরাস ধ্বংস করতে পারে এমন মাস্ক তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে আগাই। ১৯০০ সাল থেকে গবেষণায় দেখা গেছে আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি ভাইরাস মারতে পারে। মাস্কে এই আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি যুক্ত ও কার্যকর করাটা ছিল চ্যালেঞ্জিং। বেশ সময়ও লেগেছে। অবশেষে মাস্কে আমরা এই প্রযুক্তি যুক্ত করতে সক্ষম হয়েছি। এটার পাশাপাশি ইলেকট্রিক্যাল সিলভার বেসও তৈরি করেছি। এর মধ্য দিয়ে আমরা জীবাণু ও ভাইরাস ধ্বংসকারী মাস্ক তৈরি করতে সক্ষম হয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘মাস্কের মধ্যে আমরা একটা ফিল্টার তৈরি করেছি যেটা আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি দিয়ে জীবাণু ও ভাইরাস ধ্বংস করে পরিস্কার রাখবে। ফিল্টারে কোনো ভাইরাস ধরা পড়লে সেটাকে ধ্বংস করবে।

ইতিমধ্যে আমরা এটার মেধাস্বত্ত্ব পাওয়ার জন্য আবেদনও করেছি। সেটা পেয়ে গেলেই আমরা এটা উন্মুক্ত করব।’ ডাক্তার তারিক বলেন, ‘এটা মূলত পাওয়ার ব্যাংক থেকে শক্তি নিবে। আর সেটার মাধ্যমে একটানা ১২ ঘণ্টা চলবে।’

More Stories
আসছে করো'না সংক্রমণ রোধী ইলেকট্রনিক মাস্ক
পাবজি কি নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে? শঙ্কায় আছেন কেন চীনের ধনীরা